খবরজাতীয়লীড-6

বিদ্যুতের ছেঁড়া তারে প্রাণ গেল ডা. পলাশ দে’র

সড়কে বৃষ্টির জমাট পানিতে পড়ে থাকা বৈদ্যুতিক ছেঁড়া তারে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা গেছেন ডা. পলাশ দে। বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর কলাবাগানের গ্রিনরোডে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ডা. পলাশ দে রাজধানীর গ্রিনলাইফ হাসপাতালে কর্মরত ছিলেন।

বিকাল চারটার দিকে গ্রিনরোডে জমে থাকা বৃষ্টির পানিতে পড়ে থাকা বৈদ্যুতিক ছেঁড়া তারের সংস্পর্শে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন ডা. পলাশ দে (২৫)। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে নিকটস্থ ক্রিসেন্ট গ্যাস্টোলিভার হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তার পিতা গোপাল দে এবং মাতা তাপসী রানী দে। তিনি সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও রাজধানীর নটরডেম কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। পরে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে ভর্তি হন। শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের ২০১১-১২ সেশনের শিক্ষার্থী ছিলেন তিনি। গত বছর একই মেডিকেল কলেজ থেকে ইন্টার্নশিপ শেষ করেন তিনি।

এরপর থেকেই রাজধানীর গ্রিনলাইফ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন ডা. পলাশ।

ডা. পলাশের মৃত্যুর খবরে শোকের ছায়া নেমে এসেছে চিকিৎসকদের মাঝে। তাদের অনেকেই এ বিষয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

গণস্বাস্থ্যনগর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ও সন্ধানী কেন্দ্রীয় পরিষদের সাবেক সেন্ট্রাল প্রেসিডেন্ট ডা. শাহপরান ইসলাম প্রবাল লিখেছেন, Image may contain: one or more people and people sitting

জমাট বাধা পানিতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে একজন ডাক্তার আজকে গ্রীন রোডে মারা গেল।

আচ্ছা আমি তো ওদিকেই নর্থ রোডের আসেপাশেই থেকেই ডিউটি করতে যাই।

কতটা অসহায় আমরা? কিভাবে একজন ডাক্তার আইসিউতে ডিউটি করতে যাওয়ার সময় নিজের জীবনটাই অকাতরে বিলিয়ে দিল।

 

তরুণ চিকিৎসক মামুন চৌধুরী  রাজু লিখেছেনImage may contain: 1 person, outdoor

এই দুর্ঘটনা যে কারো সাথে ঘটতে পারত। এই মৃত্যকূপের শহরে আমরা কি কখনো নিরাপদ? এই হত্যার দায় কার? বিদ্যুৎ বিভাগ নাকি নগর পিতাদের? একজন তরুণ চিকিৎসক যে কিছুদিন আগে বিধাতার কাছে প্রার্থনা করেছে আর যাতে বৃষ্টি না হয়, ডেংগু না ছড়ায়! তার জীবন চলে গেল? এরকম একটা একটা করে সূর্য হারাচ্ছি আমরা।