খবরজাতীয়লীড

কিডনি চিকিৎসায় যুগান্তকারী সাফল্যের দাবি কেমিস্ট সালাউদ্দিন মাহমুদের

‘মাই লর্ড, কিডনি চিকিৎসায় ডায়ালাইসিস কিংবা প্রতিস্থাপন কিছুরই দরকার নেই। আমি আমার ২০ বছরের গবেষণার মাধ্যমে কিডনি চিকিৎসায় এক যুগান্তকারী সফলতা আবিষ্কারে সক্ষম হয়েছি।’ বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি খন্দকার দিলীরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে শুনানিকালে এমনটা দাবি করেন সালাউদ্দিন মাহমুদ নামের এক ব্যক্তি।

মানবদেহে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজন আইন ও বিধি প্রণয়ন সংক্রান্ত এক রিটে কিডনি ডায়ালাইসিস ও কিডনি প্রতিস্থাপনের শুনানির শেষ দিকে কোর্ট রুমের পেছনের সারির বেঞ্চ থেকে এক মধ্যবয়সী ব্যক্তি উঠে দাঁড়িয়ে বলেন, ‘মাননীয় আদালত, আমি কিছু বলতে চাই।’

এরপর তিনি আদালতের ডায়াসের কাছে এগিয়ে গিয়ে উপরোক্ত দাবিগুলো করেন।

এসময় এজলাসকক্ষে হাসির রোল পড়ে যায়। সবাই প্রায় হতভম্ব হয়ে যান যে, ওপেন কোর্টে এ ব্যক্তি কোথা থেকে এসে কী বলা শুরু করেছেন!

তখন হাইকোর্ট ওই ব্যক্তির কাছে জানতে চান, ‘আপনার পরিচয় কী, কে আপনি, কী করেন?’ এরপর তিনি আদালতে বলেন, ‘আমার নাম সালাউদ্দিন মাহমুদ। কেমিস্ট্রিতে লেখাপড়া শেষ করে কিডনি চিকিৎসা নিয়ে গবেষণা করেছি। আমি একজন কিডনি চিকিৎসক। টিকাটুলিতে আমার চেম্বার।’

এরপর আদালত তাকে বলেন, ‘আপনাকে তো আমরা মামলার বিষয়ে এখানে ডাকিনি। আর আপনি কী বলছেন? আপনি কেমিস্ট্রিতে লেখাপড়া শেষ করে কিডনি চিকিৎসা করেন?

এরপর আদালতে সালাউদ্দিন মাহমুদ বলেন, আমার কাছে হাজার হাজার কিডনি রোগী এসে ভালো হয়েছে। ডায়ালাইসিসের রোগী এসে ভালো হয়েছে, তাদের আর কখনোই ডায়ালাইসিস লাগেনি। এমনকি আমার কাছে একবার যে চিকিৎসা করেছ তার জীবনে আর কখনোই কিডনির সমস্যাই হয়নি বলে দাবি করেন এই ব্যক্তি।

তিনি দাবি করেন, সুপ্রিম কোর্টের অনেক আইনজীবী, সমাজের বড় বড় ব্যক্তি, এমনকি রওশন এরশাদও তার কাছ থেকে কিডনির চিকিৎসা নিয়েছেন।

এসময় আদালতে উপস্থিত আইনজীবী, সাংবাদিকসহ সবার মাঝে একটা কৌতূহলী আর হাস্যকর অনুভূতির তৈরি হয়। তবে, আদালত কক্ষে চলা এরকম অদ্ভূত প্রেক্ষাপটকে যেন নাটকীয়তায় রূপ দেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল সিরাজুল আলম ভূঁইয়া।

এই আইনজীবী দাঁড়িয়ে বিচারকদের উদ্দেশে বলেন, ’মাই লর্ড, আমার এক নিকট আত্মীয় ওনার ভেষজ ওষুধ খেয়ে কিডনি রোগ থেকে পুরোপুরি সুস্থ হয়েছেন।’ রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীর মুখ থেকে এ কথার শোনার পর যেন পুরো আদালত কক্ষ স্তম্ভিত।

আদালত এসময় আইনজীবী সিরাজুল আলম ভূঁইয়াকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আপনি কি ঠিক বলছেন? আপনার আত্মীয় সুস্থ হয়েছেন উনার ওষুধ খেয়ে? এর জবাবে সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘মাই লর্ড, আমার আত্মীয় পুরোপুরি সুস্থ হয়ে গেছেন। এবং তার আর এখন কিডনির সমস্যা নেই।’ তখন আদালত বলেন, ‘তাহলে তো একে পুরস্কার দেয়া উচিত। একে তো সরকারের প্রমোট করা উচিত। যদি তার এই চিকিৎসা পদ্ধতি সঠিক হয়, তাহলে তো এটা একটা বিস্ময়।’

এ পর্যায়ে কিডনি চিকিৎসক দাবি করা সালাউদ্দিন মাহমুদ আদালতকে বলেন, ‘মাই লর্ড, আমার ব্যাপারে খোঁজ নিতে পারেন। আমার চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ে খোঁজ নিতে পারেন। আপনারা দেখতে পারেন যে, আমার চিকিৎসায় কিডনি রোগী সুস্থ হয় কি না। আমি চ্যালেঞ্জ দিতে পারি, শেষ মুহূর্তে থাকা কোনো কিডনি রোগীও যদি আমার চিকিৎসা নেয় তাহলে সে পরিপূর্ণ সুস্থ হবেন।’

এরপর হাইকোর্ট রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীকে বলেন, ‘সালাউদ্দিন মাহমুদের বিষয়টি নিয়ে আপনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও সরকারের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলতে পারেন। সত্যিই যদি কিডনি চিকিৎসায় ওনার কোনো সফল আবিষ্কার থেকে থাকে তাহলে তো উনি প্রশংসার দাবিদার।’