ডাক্তারি পরামর্শ

আপনি কেন ব্যায়াম করবেন

ডা. মোঃ আল -আমিন খান :

আপনি যদি নিয়মিত শারীরিক ব্যয়াম করেন তাহলে সেটার সুবিধোগুলো কি আসুন জেনে নিই –

(১) আপনার হার্টের বিভিন্ন রোগের সম্ভাবনা ৩৫% কমে যাবে।

(২) আপনার ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনা ৪০% পর্যন্ত কমে যাবে।

(৩) আপনার কোলন ক্যান্সার অর্থাৎ মলাশয়ের ক্যান্সারের সম্ভাবনা ৩০% কমে যাবে।

(৪) বাংলাদেশে কমন একটা রোগ মেয়েদের ব্রেস্ট ক্যান্সার।সেটার সম্ভাবনা ২০% কমে যাবে।

(৫) ডিপ্রেশন ৩০% কমে যাবে।যেটা করোনা পেন্ডেমিক এই সময়ে সকলের কম বেশী প্রবলেম।

(৬) বৃদ্ধ বয়সে হিপ ফ্যাকচার অর্থাৎ কোমড় ভাঙ্গার সম্ভাবনা ৬৮% কমে যাবে।

(৭) ডিমেনসিয়া অর্থাৎ আপনার স্মৃতিলোপের সম্ভাবনা ৩০% কমে যাবে।

(৮) আপনার উচ্চ রক্ততাপ হওয়ার সম্ভাবনা ৩৩% কমে যাবে।

(৯) Functional Limitation অর্থাৎ বৃদ্ধ বয়সে হাটতে না পারার সম্ভাবনা ৩০% কমে যাবে।

শারীরিক এক্সারসাইজের এতোগুলো সুবিধা থাকা সত্ত্বেও আপনি কেন ব্যায়াম করবেন না?

এখন আসি সারাদিনে কতটুকু ব্যায়াম করবো?

(১) আপনার বয়স যদি ১৯-৬৪ বছর হয় তাহলে

সপ্তাহে অন্তত ১৫০ মিনিট শারীরিক ব্যায়াম করতে হবে। অর্থাৎ দিনে ৩০ মিনিট করে সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন ব্যায়াম, হাঁটাহাঁটি করতে হবে। কিন্তু একটানা দুইদিন জ্ঞেপ দেওয়া উচিত নয়। যখন ব্যায়াম করবেন তখন একটানা অন্তত ১০ মিনিট করতে হবে। অর্থাৎ যদি হাটেন তাহলে একটানা অন্তত ১০ মিনিট হাঁটতে হবে।

প্রাপ্ত বয়স্ক প্রত্যেককে সপ্তাহে অন্তত দুইদিন ভারী কিছু দিয়ে ব্যায়াম করা, ভারী কিছু বহন করা এবং ইয়োগা করতে বলা হয়।

প্রেগন্যান্ট মহিলাদের ক্ষেত্রেও সপ্তাহে ১৫০ মিনিট পরিমিত ব্যায়াম করতে হবে।

প্রেগন্যান্সিতে ব্যায়ামের সুবিধাগুলো হলো-

* আপনার ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখবে।

* আপনার উচ্চ রক্তচাপ কমাবে।

* আপনার মার্তৃত্বকালীন ডায়াবেটিস এর ঝুকি কমাবে।

* আপনার ফিটনেস ঠিক রাখবে।

* আপনার মেজাজ ঠিক রাখতে সাহায্য করবে।

আর ৬৪ বছরের বেশী বয়স্কদের ও ঠিক একই পরিমাণ ব্যায়াম করতে হবে। কিন্তু তারা হয়তো ১৯-৬৪ বছর বয়সীদের মত কঠিন শারীরিক পরিশ্রম করতে পারবে না।কিন্তু তবুও এই পরিমাণ পরিমিত ব্যায়াম করতে হবে।

(২) ৫-১৮ বছর বয়সীদের প্রতিদিন ১ ঘন্টা করে ব্যায়াম করতে হবে।

(৩) ৫ বছর পর্যন্ত বয়সীদের প্রতিদিন তিন ঘন্টা ব্যায়াম করতে হবে। সুতরাং আপনার বাচ্চার প্রতি খেয়াল রাখবেন সে সারাক্ষণ মোবাইল ল্যাপটপ নিয়ে আছে, শুয়ে বসে আছে। নাকি অন্তত ৩ ঘন্টা খেলাধুলা হাঁটাহাঁটি করছে।

একটা রিসার্চ বলে আপনি যদি ৫০-১২০ জনকে ধূমপানের ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে বুঝান তাহলে এর ভিতরে শুধু ১ জন আপনার কথা শোনবে।

কিন্তু আপনি যদি শারীরিক ব্যায়ামের উপকারিতা সম্পর্কে বুঝান প্রতি ১২ জনের ভিতরে ১ জন আপনার কথা মেনে চলবে।

আসুন করোনাকালীন এই সময়ে সারাদিন শুয়ে বসে না থেকে প্রতিদিন নিয়মিত শারীরিক ব্যায়াম করি। এর গুরুত্ব নিজেরা উপলব্ধি করি, প্রতিদিনের অভ্যাসে পরিনত করি, তথ্যগুলি আপনার বাবা মা পরিবার পরিজন কে জানিয়ে শারীরিক ব্যায়ামে উদ্বুদ্ধ করি। বিভিন্ন রোগ থেকে বেঁচে থাকি।