ক্যাম্পাসজাতীয়

বিএসএমএমইউয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন

বিস্তারিত কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৯ উদযাপন করেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধুর ম্যূরালে ও সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অপর্ণের মাধ্যমে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আলোকসজ্জাকরণ, এ বিশ্ববিদ্যালয়ের হাসপাতালে রোগীদের জন্য উন্নতমানের খাবার পরিবেশন ইত্যাদি।

কর্মসূচির শুরুতে সকাল ৬টা ২৫ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এরপর সকাল ৬টা ৩০ মিনিটে বি ব্লকের নীচে স্থাপিত সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ম্যূরালে পুষ্পস্তবক অপর্ণের মাধ্যমে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়। এসময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া, উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মোঃ শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. সাহানা আখতার রহমান, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল হান্নান, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মোজাফফর আহমেদ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সহযোগী অধ্যাপক ডা. জিল্লুর রহমান ভূঁইয়া, পরিচালক (হাসপাতাল) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে মাহবুবুল হক, পরিচালক (অর্থ ও হিসাব) জনাব মোঃ আবদুস সোবহান, সেবা তত্ত্বাবধায়ক শান্তনা রানী দাস উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও বঙ্গবন্ধুর ম্যূরালে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকেও পুষ্পস্তবক অপর্ণের মাধ্যমে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়। এরপর সকাল ৯টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া-এর নেতৃত্বে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়।

সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, মার্চ মাস স্বাধীনতার মাস। এই মার্চ মাসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জন্মগ্রহণ করেছেন, এ মাসেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। মহান স্বাধীনতা দিবসে আমাদের শপথ হবে বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে যাওয়া। মাননীয় উপাচার্য এসময় ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ মার্চের গণহত্যা দিবসের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি প্রদানের জন্য আন্তর্জাতিক মহলের প্রতি জোর দাবি জানান।

উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মোঃ শহীদুল্লাহ সিকদার বলেন, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার বিরুদ্ধে দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্র বিদ্যমান রয়েছে। মহান মুক্তিযুদ্ধের সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ থেকে সতর্কতার সাথে স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তিকে মোকাবেলার মাধ্যমে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।